গ্রীষ্মের প্রচন্ড তাপদাহ স্বত্ত্বেও কিভাবে নিজেকে স্বতস্ফূর্ত রাখবেন


সোমবার,৩১/০৭/২০১৭

সাব‌রিনা খান---

‘সুস্থ তুমি, সুন্দর তুমি”

গ্রীষ্মের প্রচন্ড তাপদাহ স্বত্ত্বেও কিভাবে নিজেকে স্বতস্ফূর্ত রাখবেন

সাব‌রিনা খান
ঢাকা, বাংলা‌দেশ

চিন্তায় পড়েছ গ্রীষ্মের প্রচন্ড তাপদাহ স্বত্ত্বেও কিভাবে নিজেকে স্বতস্ফূর্ত রাখবে! আজ তোমাদের জানাবো এই গরমে শরীরকে কত সহজ উপায়ে সুস্থ রাখা যায় এবং সুন্দর থাকা যায়।

কথায় বলে স্বাস্থ্যই সম্পদ৷ সুস্বাস্থ্যের অধিকারীর মনও সুন্দর হয়৷ তবে সুস্বাস্থ্য বলতে শুধুই মাংসপেশি কে বোঝায় না৷ তুমি কতটা ফিট, সারাদিনে কত কাজ করতে পারছ, খাদ্য তালিকায় কী কী খাবারের নাম রেখেছো, সর্বপরি তোমার ত্বক কতটা সুস্থ! কেবল ‍সৌন্দর্য নয়, ত্বক সুস্থ থাকলেই কিন্তু তুমি সুন্দর। তাই শরীরের সঙ্গে ত্বকের যত্নও অত্যন্ত জরুরি৷ ত্বক উজ্জ্বল হলে বন্ধুদের মধ্যে বা কর্মক্ষেত্রে আত্মবিশ্বাসও বেড়ে যায়৷

অতিরিক্ত গরমে ত্বক আর্দ্রতা হারায় এবং শুষ্ক হয়ে পড়ে। জন্মগতভাবে ত্বক তিন ধরনের হয়ে থাকে। স্বাভাবিক ত্বক, শুষ্ক ত্বক ও তৈলাক্ত ত্বক। রোদ ও ধূলোবালি স্নিগ্ধ ও সতেজ ত্বকের বড় শত্রু। রোদের পোড়াভাব ত্বকে খুব তাড়াতাড়ি বসে যায়। লোমকূপে ময়লা জমে মুখে ব্রণ হয় এবং রোদের ছোপ ছোপ দাগ পড়ে ত্বক রুক্ষ হয়ে যায়। শুধু তাই নয়, ঘাম থেকে ঘামাচিসহ নানা সমস্যা দেখা দিতে পারে। আবার কখনও কখনও র‌্যাশ হতেও দেখা যায়। ত্বক শুষ্ক হলে ত্বকের নমনীয়তা কমে যায়, আর নমনীয়তা কমে গেলে ত্বকে ফাটল ধরে এবং বার্ধক্যের ছাপ ফুটে উঠে চেহারায়।

তাই এসো আমরা এবার জেনে নেই এই প্রচন্ড গরমে কিভাবে সুস্থ ও সুন্দর থাকা যায়:

গরমের দিনে ত্বকের পরিষ্কার-পরিচ্ছন্নতার ব্যাপারে বেশি যত্নশীল হতে হয়। এজন্য তুমি ব্যবহার করতে পারো গ্লিসারিন-সমৃদ্ধ সাবান অথবা বিভিন্ন কোম্পানির বাজারজাতকৃত ফেসওয়াশ। তবে  আমি বলব এইসব রাসায়নিক পদার্থ মিশ্রিত ফেসওয়াস না ব্যবহার করে যাদের ত্বক তৈলাক্ত তারা বেশী বেশী মুখ ধৌও। তুমি পানি দিয়ে ত্বক ধুলে দেখবে তোমার ত্বক অনেকটাই শীতল থাকবে। এছাড়া সমপরিমান মেথির গুড়ো, শসার রস এবং চালের গুড়ো দিয়ে খুব সহজেই একটি প্যাক তৈরি করে যাদের তৈলাক্ত ত্বক তারা ব্যবহার করতে পার। দেখবে এতে তোমার ত্বকের তৈলাক্ত ভাব অনেকটাই হ্রাস পাবে। দিনে দুইবার এই প্যাক লাগালে তোমার ত্বকের ব্রণ হবার প্রবণতাও অনেকটাই কমে যাবে কারণ ব্রণ তৈলাক্ত ত্বকের একটি প্রধান সমস্যা।

যাদের শুস্ক ত্বক তাদের কে বলছি, তোমরা একমুঠ মসুরডাল এর সাথে ১চা চামচ দুধের সর এবং ১ চা চামচ টমেটোর রস মিশিয়ে ২০ মিনিট রেখে তার পর ধুয়ে ফেল। আবিষ্কার কর নতুন একজনকে।

সাধারণ ত্বকের অধিকারীগণ ত্বকের যত্ন নিতে সমপরিমান আমলকি, সয়াবিনের গুঁড়া ও সামান্য একটু কাঁচা হলুদ আর মধু মিশিয়ে প্যাক তৈরি করে লাগাতে পার।

ত্বকের সুস্থতার জন্য সবজি, ফল, সালাদ, প্রোটিন, ভিটামিন, কার্বহাইড্রেড অত্যান্ত জরুরী। প্রতিদিন কমপক্ষে ৭ থেকে ৮ গ্লাস পানি পান করা জরুরী।

রক্ত চলাচল ও শ্বাস – প্রশ্বাসের কার্যকলাপ ঠিক রাখার জন্য ব্যায়াম করতে হবে। মানসিক চাপ থেকে ত্বক ও চুলে নানা রকম সমস্যা দেখা দেয়। সেক্ষেত্রে নিয়মিত ব্যায়াম এ সমস্যা সমাধানে কাজ করে। দিনে অন্তত দুইবার ঠান্ডা পানি দিয়ে গোসল করা ঊচিত। আর অবশ্যই পরিষ্কার এবং ধোয়া সুতি কাপড় পরিধান কর।

অনেকের গায়ে ঘামের কারণে দূগন্ধ হয়। সেক্ষেত্রে ডিওড্রেন্ট ট্যালকম পাউডার ব্যাবহার করে অথবা পারফিউম  বা বডিস্প্রে লাগিয়ে এ সম্যসার সমাধান সম্ভব। তবে প্রাকৃতিক ভাবে গায়ের দূগর্ন্ধ দুর করতে চাইলে এক টুকরা লেবু বগলে ঘষে নিতে পার আর পরিবর্তন টা দেখ।

এই গরমে ভাল থাকাতে খুব বেশি আঁটসাট পোশাক এড়িয়ে চল৷ ত্বক সুস্থ থাকবে। আর বাইরে থেকে ফিরেই ঠান্ডা পানি দিয়ে মূখ ধুয়ে ফেল।

ভাবছ আজ থাক, কাল করব? কিন্তু এসব জিনিস ফেলে রাখবে না কখনও৷নিয়মিত ত্বকের যত্ন নাও আর সুস্থ থাক, হয়ে ওঠ দিনে দিনে আরও সুন্দর।

চাক‌রির খবর

ভ্রমণ

হেঁসেল

জানা অজানা

সাহিত্য / কবিতা

সম্পাদকীয়